ঢাকা, শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ৩ জৈষ্ঠ্য ১৪২৭, ২ জ্বমাদিউল সানি ১৪৪২

অন্তরের চিকিৎসার জন্য কুবি ইংরেজি বিভাগের ২লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা হস্তান্তর 


প্রকাশ: ৬ জানুয়ারী, ২০২১ ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন


অন্তরের চিকিৎসার জন্য কুবি ইংরেজি বিভাগের ২লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা হস্তান্তর 

কুবি থেকে শাহীন আলম: কিডনিজনিত সমস্যায় জর্জরিত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী অন্তর শাহার চিকিৎসার সাহায্যে জন্য  ২লক্ষ ৭৬ হাজার ৫০০টাকা হস্তান্তর করা হয়েছে। 

বুধবার (৬ জানুয়ারি) ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধানের কক্ষে এ টাকা হস্তান্তর করা হয়। অন্তরের পক্ষে এ টাকা তার সহপাঠীরা গ্রহণ করেন।
এতে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ ও বিভাগের সহযোগী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা এবং অন্তরের সহপাঠীদের পক্ষ থেকে ১ লক্ষ ২৭ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক বনানী বিশ্বাস, ছাত্র উপদেষ্টা সহকারী অধ্যাপক রেনেসাঁ আহমেদ সায়মা, বিভাগের সাংস্কৃতিক সংগঠন লিবারেল মাইন্ডসের আহ্বায়ক সহকারী অধ্যাপক শারমিন সুলতানা, বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফিরোজ আহমেদ এবং সহকারী অধ্যাপক নকীবুন নবী।

ছাত্র উপদেষ্টা রেনেসাঁ আহমেদ সায়মা বলেন, আমি যখন ক্লাসে যায়, অন্তরকে আমি পাই একজন নম্র, ভদ্র ছাত্র হিসেবে। সে সবসময় হাসিখুশি থাকতো। তার বিষয়টা শুনার পরে আমার খুবই খারাপ লাগে এবং আমি নিজে উদ্ধোগ নিয়ে ছাত্রদের সাথে কথা বলে সবাই মিলে কাজ শুরু করি। কিন্তু টাকার পরিমাণটা বেশি হওয়ায় রাতারাতি এতো টাকা তুলা আমাদের পক্ষে সম্ভব না। তাই সর্বস্তরের সবার প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা আপনাদের যায়গা থেকে যতটুকু পারেন, অন্তরের সাহায্যে এগিয়ে আসুন।

অন্তরের সহযোগিতায় ব্যতিক্রম উদ্ধোগ সম্পর্রকে বিভাগীয় প্রধান বনানী বিশ্বাস জানান, আমরা কিছু অনলাইন বিজনেস করতে যাচ্ছি আমাদের কিছু ছাত্রছাত্রীদের দিয়ে। আমি এবং রেনেসাঁ মেডাম  প্রাথমিক পুঁজিগুলো দিবো যাতে তারা ব্যবসা শুরু করতে পারে। কাজ শুরু করার পরে যে লাভটা আসবে সেটার পুরোটাই অন্তরের ফান্ডে যাবে। 

উল্লেখ্য, দুইটা কিডনি ডেমেজড আবস্থায়ই  তিন বছর আগে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলেন অন্তর শাহা। অর্থের অভাবে চিকিৎসা নিতে পারেননি, তাই গোপন রেখেছিলেন নিজের ভয়ংকর ব্যাধির কথা। সহপাঠীরা জানলে তাদের উদ্যোগে শুরু হয় অন্তরের চিকিৎসা।

কিডনির ব্যাবস্থা করতে পারলেও টাকার কারনে আটকে আছে চিকিৎসা। বাঁচতে হলে কিডনি ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে, হাসপাতালের বকেয়া, ওষুধপত্র বাবদ আরও প্রয়োজন ৩০ থেকে ৩৫ লাখ টাকা। এত পরিমাণ অর্থ তার পরিবার কিংবা সহপাঠীদের জন্য যোগাড় করা প্রায় দুঃসাধ্য।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানাঃ

বিকাশ (পার্সোনাল) : ০১৬২২-৬৭৬৮৬৮
রকেট : ০১৬২২-৬৭৬৮৬৮১
নগদ : ০১৬২২-৬৭৬৮৬৮
জনতা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট : ১০০০০২২৭৭২৫৭
 


   আরও সংবাদ