ঢাকা, বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৭, ১৬ রবিউল সানি ১৪৪২

চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিশু প্লে-কর্ণার উদ্বোধন


প্রকাশ: ১৫ নভেম্বর, ২০২০ ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন


চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিশু প্লে-কর্ণার উদ্বোধন

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিশু প্লে-কর্ণার উদ্বোধন করা হয়েছে। ক্যান্সারে মারা যাওয়া যশোর সরকারি এম এম কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোস্তফা কামালের ৪ বছরের শিশু সন্তান আব্দুর রহমানের স্বপ্নপুরণে তার পরিবারের পক্ষ থেকে এই প্লে-কর্ণারে উপহার হিসেবে বাচ্চাদের খেলনা প্রদান করা হয়।

রোববার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে এ উপলক্ষে এ টোকেন অফ লাভ ফরম আব্দুর রহমান শিরোনামে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশিক্ষণ রুমে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোছাঃ লুৎফুন্নাহার লাকির সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন যশোর সরকারি এমএম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক এসকে আবুল কাউসার। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন। 

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আহমেদ ফয়েজী বিন সা’দ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে দেশ বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে মারা যাওয়া শিশু আব্দুর রহমানের পিতা যশোর সরকারি এমএম কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোস্তফা কামাল। 

প্রধান অতিথি তার বক্তৃতায় বলেন, এখানে আসার পর আমি বুঝতে পেরেছি এটা একটা ব্যতিক্রমি হাসপাতাল। তিনি প্লে কর্ণার উদ্বোধনের বিষয়ে বলেন পৃথিবীকে আনন্দঘন করতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। যেন পরবর্তী প্রজন্ম সেটা বুঝতে পারে।

এসময় আব্দুর রহমানের মা নাহিদা শর্মিলা, ছোট বোন ফাতেমা, বড় চাচা আমিনুর রহমান, চাচাতো ভাই ফায়েজসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও নার্স, যশোর সরকারি এমএম কলেজের কয়েকজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। 

আলোচনা সভা শেষে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটারের সামনের একটি খোলা স্পেসে উপহারের খেলনা দিয়ে শিশু প্লে কর্ণার উদ্বোধন করা হয়।

ক্যান্সারে মারা যাওয়া শিশু আব্দুর রহমানের পিতা বলেন আমার ছেলে আব্দুর রহমান ৪ বছর ১ দিন বয়সে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। আলহামদুল্লিাহ আমি আমার ছেলের সর্বোচ্চ চিকিৎসা করিয়েছি। প্রায় এক বছর তিন মাস দেশের বাইরে সে চিকিৎসা নিয়েছে। 

তার একটা স্বপ্ন ছিল সে দেশে এমন একটা হাসপাতাল তৈরি করবে সেখানে একটি ইনজেকশনে সব রোগ সেরে যাবে। বাইরে চিকিৎসা নিতে গিয়ে দেখেছি সেখানকার হাসপাতালে শিশুদের জন্য খেলনা প্লে কর্ণার রয়েছে। বাচ্চারা সেখানে খেলা করে।

আর এগুলো কমিউনিটি পার্টিশিপেশনের মাধ্যমেই এগুলি করা হয়। কিন্তু আমাদের দেশে আমরা সরকারি অনুদানের দিকে চেয়ে থাকি। তাই আমি আমার আব্দুর রহমানের স্বপ্ন পুরনে পর্যায়ক্রমে দেশের সকল জেলা পর্যায়ের হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এই উপহার সামগ্রী পৌছে দেব। 

তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই ত্রিশটি জেলায় এই উপহার সামগ্রী পৌছে দেয়া হয়েছে। আব্দুর রহমানের পিতা মোস্তফা কামাল চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহারের দেবর।


   আরও সংবাদ