ঢাকা, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ কার্তিক ১৪২৯, ২৯ জ্বিলক্বদ ১৪৪৩

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে জয় পেল পাকিস্তান


প্রকাশ: ৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ পূর্বাহ্ন


শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে জয় পেল পাকিস্তান

অনলাইন ডেস্ক:২০১৭ সালটা দারুণ কেটেছে পাকিস্তানের তবে নতুন বছরের শুরুটা খুব বেশি সুখকর হলো না সরফরাজ বাহিনীর।  ওয়ানডে সিরিজে ধবলধোলাইয়ের পর অবশেষে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে জয়ের দেখা পেল পাকিস্তান।  সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে দিয়ে ৪৮ রানের বড় জয় পায় বাবার-আমিররা।  

অকল্যান্ডে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানের দুই ওপেনার ফখর জামান ও আহমেদ শেজাদ দারুণ সূচনা করেন। পাত্তাই দিল না নিউজিল্যান্ডের বোলারদের। ফখর জামান তার টি-২০ ক্যারিয়ারে প্রথম হাফসেঞ্চুরি তুলে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন।  ২৮ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় তিনি করেন ৫০ রান।  রঞ্চির বলে আউট হওয়ার আগে আরেক ওপেনার আহমেদ শেহজাদ ৪৪ রান করে সাজ ঘরে ফিরেন।

এরপর অধিনায়ক সরফরাজকে সাথে নিয়ে পরে বাবর আজম তুলেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় ফিফটি। তাদের জুটি থেকে আসে ৯১ রান।  ২৪ বলে ৪১ রান করে সরফররাজ বিদায় নিলেও ২৯ বলে ৫০ রান করে অপরাজিত থাকেন বাবর।  ফলে পাকিস্তান ৪ ইউকেট হারিয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে নিউজিল্যান্ডকে লক্ষ্য দেয় ২০২ রানের।  

নিউজিল্যান্ডের হয়ে বেন হুইলার নেন ২ উইকেট। এছাড়া শেথ রেঞ্চ ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমে নেন ১ টি করে উইকেট।

২০২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই আমিরের বলে কাটা পরে ওপেনার কোলিন মুনরো।  পরের ওভারে দলীয় মাত্র ২৮ রানের মাথায় কোন রান না করেই হারিস সোহেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে রুম্মানের শিকার হয়ে সাজঘরের পথ ধরেন অধিনায়ক উইলিয়ামস।  গাপটিলকে নিয়ে ইনিংস মেরামোত শুরু করেন ব্রুস তবে মাত্র ১১ রান করে রান আউটের শিকার হন তিনি। এক ওভারে পরেই শাদাব খানের শিকার হয়ে গাপটিল যখন ফিরে যাচ্ছিলেন তখন নিউজিল্যান্ডের রান ৫২। 

গাপটিলের বিদায়ের পর নিউজিল্যান্ডের জয়ের আশা অনেকটা ফিকে হয়ে যায়।  ‍উইকেট কিপার ফিলিপস ও অলরাউন্ডার কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমও নামরে প্রতি সুবিচার করতে পারেনি।  ৬৪ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে মহাবিপদে কিউই বাহিনী।  শেষ দিকে সান্টনারে ৩৭ ও ওয়েলারের ৩০ রান জয়েরে ব্যাবধান কমিয়েছে মাত্র।  শেষ দিকে ফাহিম আশরাফের বোলিং তোপে মাত্র ১৫৩ রানে শেষ হয় তাসমান তীরের দেশ নিউজিল্যান্ডের ইনিংস।  পাকিস্তান পায় সফরের প্রথম জয়। 

পাকিস্তানের পক্ষে ফাহিম ৩টি, শাদাব খান ও আমির ২টি করে উইকেট নেয়।  ম্যাচ সেরার পুরষ্কার পায় ফখর জামান। 


   আরও সংবাদ