ঢাকা, রবিবার, ২২ মে ২০২২, ৭ আশ্বিন ১৪২৯, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩

ডাক্তারের সহযোগিতায় বাচ্চার মা হয়ে স্বামীর সাথে প্রতারণা


প্রকাশ: ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২২ ০৫:০৬ পূর্বাহ্ন


ডাক্তারের সহযোগিতায় বাচ্চার মা হয়ে স্বামীর সাথে প্রতারণা

নিজস্ব প্রতি‌বেদক: পেটে বাচ্চা ধারন না করেও হলেন বাচ্চার মা স্বামীর সাথে প্রতারণা। নওগাঁ জেলার আত্রাই থানার হাট কালু পাড়া ইউনিয়নের বান্দাই খাড়া গ্রামের ছানোয়ার হোসেনের স্ত্রী দিলরুবা (রিক্তা) স্বামীর সাথে এমন প্রতারণা করে অন্যের বাচ্চা নিয়ে ধানমন্ডি পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাঃ জয়শ্রী সাহার সহযোগিতায় হলেন বাচ্চার মা। 

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যাক্তি জানান আমার কাছে দীর্ঘদিন যাবত বাচ্চার জন্য অনেক বার অনুরোধ করছে এবং আমাকে টাকার আফার করেছে কিন্তু আমি তার প্রস্তাবে রাজি না হলে তিনি একটি মাধ্যমে ঢাকার ধানমন্ডি পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাঃ জয়শ্রী সাহার সহযোগিতায় বাচ্চা পাবার আসায় সেখানে ভর্তি হয়। চলতি বছরের গত ০৫ ফেব্রুয়ারি তার বাচ্চা নর্মাল ভাবে হয়।

তারা ফেসবুকে রিক্তার আগের পক্ষের ছেলে বাচ্চার ছবি দিয়ে স্ট্যাটাস দেয়। এ খবর শোনার পর আত্মীয় স্বজনেরা যারা জানে তার পেটে বাচ্চা কনসেপ্ট করে নাই অথচ কি ভাবে বাচ্চার মা হলো এক পর্যায়ে রিক্তার তার এক আত্মীয় সাংবাদিককে বিষয়টি অবগত করেন। সাংবাদিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য বেরিয়ে পড়ে। রিক্তার কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি জানান আমি আমার সংশার টিকানোর জন্য এই কাজ করেছি। ডাঃ ম্যাডাম কে বলুন আপনারা কিছু বলবেন না যদি সাংবাদিক বাঁধা দেয়। তাহলে আমার সংসার ভেঙে যাবে এই বলে নানান ভাবে অনুরোধ করতে থাকেন তিনি।

এই দিকে ডাঃ জয়শ্রী সাহাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, এই প্রেসেন্টের কোনো বাচ্চা হয়নি, ব্যাক পেন নিয় এই রুগী ৫১২ নং কেবিনে ভর্তি আছে। সাংবাদিক আইন বহির্ভূত কাজের জন্য নিউজ প্রকাশ করার কথা বল্লে তিনি উল্টো সাংবাদিকের নামে ধানমন্ডি থানায় অভিযোগ করনে ও রুগীকে রিলিজ দেয়।

রিক্তা বাচ্চা নিয়ে মোহাম্মদপুর আল মানার হাসপাতালে ৯ ফেব্রুয়ারি এনআইসিইউতে ভর্তি করে ১১ তারিখে রিক্তার স্বামী ছানোয়ার জানান, পুপলার হাসপাতালে ডাঃ জয়শ্রী সাহার কাছে ভর্তি থেকে বাচ্চা হয়েছে তারা ভালোনা বলে মন্তব্য করেন। এ দিকে ছানোয়ার সাহেব নিজেও যানেন না, অন্যের বাচ্চাকে তার স্ত্রী নিজের বাচ্চা বানিয়ে সন্তান পরিচয় দিয়ে চলছে।

এ বিষ‌য়ে ডা. জয়শ্রীর স‌ঙ্গে যোগো‌যো‌গের চেষ্টা কর‌লে তি‌নি ফোন রি‌সিভ ক‌রে ব্যস্ততা দে‌খি‌য়ে এ‌ড়ি‌য়ে যান। এ ধর‌নের আরো বেশ‌কিছু অ‌ভি‌যোগ র‌য়ে‌ছে তার বিরু‌দ্ধে। মোটা অং‌কের টাকার বি‌নিম‌য়ে দে‌শের দুর দুরান্ত থে‌কে আসা নি:সন্তান দম্প‌তি‌দের তি‌নি নবজাতক সরবরাহ ক‌রে থা‌কেন।


   আরও সংবাদ