ঢাকা, বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৮, ১৪ সফর ১৪৪৩

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে জবি উপাচার্য কক্ষের সামনে কর্মচারীদের অবস্থান


প্রকাশ: ২৪ অগাস্ট, ২০২১ ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন


চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে জবি উপাচার্য কক্ষের সামনে কর্মচারীদের অবস্থান

জবি প্রতিনিধিঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে দৈনিক হাজিরা ভিত্তিক চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীরা উপাচার্যের কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়েছেন। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) নিজেদের কাজ স্থগিত রেখে অবস্থান নেন ১০ বছরোধিক কাজ করে স্থায়ী না হওয়া প্রায় অর্ধশত কর্মচারী। তবে এসময় তাদের নিরব থাকতে দেখা যায়।

অবস্থান নেওয়া এসকল কর্মচারীদের থেকে জানা যায়, সকলেরই চাকরির বয়স ১০-১৩ বছর। কিন্তু দীর্ঘদিন দৈনিক হাজিরা ভিত্তিক নিম্ন বেতনে কাজ করলেও চাকরি স্থায়ীকরণ হয়নি। এজন্য সবাই নিজেদের চাকরির ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত। 

তারা জানান, এর আগে সাবেক উপাচার্য ড. মীজানুর রহমানের কাছে চাকরি স্থায়ীকরণের জন্য আবেদন করা হলে এবছরের গত ০৮ মার্চ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। এসময় বিজ্ঞাপ্তিতে অফিস সহকারী, পরিচ্ছন্নতাকর্মী বা সমমান কর্মচারী পদে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের নূন্যতম ১০ বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে বলা হয়। এছাড়া নিরাপত্তা প্রহরী পদে নূন্যতম ৭ বছরের অভিজ্ঞতা থাকার কথা বলা হয়। এসময় ড. মীজান বিশ্ববিদ্যালয়ের দীর্ঘদিন কর্মরত এসকল কর্মচারীকে সামনের সিন্ডিকেট মিটিং এ চাকরী স্থায়ীকরণ করা হবে বলে আশ্বাস্ত করেন। কিন্তু বিজ্ঞপ্তির ৫ মাস পার হতে চললেও তাদের চাকরীর স্থায়ীকরণে কোন সুরহা হয়নি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন কর্মচারীরা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অফিস সহকারী বাবলু শরিফ বলেন, আমরা কাজ বাদ রেখে এখানে অবস্থান নিয়েছি। আগামী ৬ সেপ্টেম্বর সিন্ডিকেট মিটিং রয়েছে। এ মিটিংয়ে আমাদের চাকরি স্থায়ীকরণ করতে হবে। এ বিষয়ে  আজ যদি কোন সুরহা না হয় তাহলে আগামীকাল থেকে আমরা আমরণ অনশন কর্মসূচি নেব।

কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীর অফিস সহায়ক ফারুক মিয়া বলেন, ১১ বছর ধরে কাজ করছি। এখনো চাকরির কোন ভবিষ্যত হয়নি। আমাদের বয়সও ৪০ পার হয়ে গেছে। এ বয়সে নিজের পরিবার নিয়ে দুঃচিন্তায় পড়েছি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে একাধিকবার কল করে পাওয়া যায়নি।


   আরও সংবাদ