ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ ফাল্গুন ১৪২৭, ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শেকৃবিতে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বে প্রশাসনিক কর্মকর্তা, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিবাদ


প্রকাশ: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১২:১২ অপরাহ্ন


শেকৃবিতে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বে প্রশাসনিক কর্মকর্তা, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিবাদ

   

বশেমুরবিপ্রবি থেকে খাদিজা জাহান : শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে প্রতিবাদ জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষক সমিতি।

আজ বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. হাসিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে তা জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে,গত ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের পরিপত্রে (স্মারক নং- ৩৭.০০.০০০০.১১৮.৯৯.১১১.০২.৬৪) শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা এর রেজিস্ট্রার জনাব শেখ রেজাউল করিমকে উপাচার্যের রুটিন, চলতি দায়িত্বের আদেশ জারি করা হয়েছে যা শিক্ষকদের জন্য অবমাননাকর। একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে উপাচার্যের মত মর্যাদাসম্পন্ন পদে দায়িত্ব দেওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক ধারণা, চেতনা এবং স্বায়ত্তশাসনের পরিপন্থী। 

ইতোপূর্বে, আমরা দেখেছি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের পদটি শূন্য হয়ে গেলে, শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সংকটকালীন পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষকদের চলতি দায়িত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু, অতীব দুঃখের বিষয় এই যে, চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্যের কাজের সীমা সুস্পষ্ট না থাকায় অনেক ক্ষেত্রেই এ পদের অপব্যবহার হয়, যা উচ্চ শিক্ষার সামগ্রিক পরিবেশ ব্যহত করছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় তথা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সঠিক দিক নির্দেশনা আশা করছি। একই সাথে, দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, ট্রেজারের মত গুরুত্বপূর্ণ শূন্য পদগুলোতে অতিসত্বর যোগ্য এবং বিচক্ষণ ব্যক্তিবর্গদের নিয়োগ দিয়ে আসন্ন সংকট উত্তরণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে আরও বেশি তৎপর হতে অনুরোধ জানাচ্ছি।

পরিশেষে, বিশ্ববিদ্যালয় তথা উচ্চ শিক্ষার চলমান অগ্রযাত্রাকে জ্ঞান ও গবেষণা নির্ভর করতে এবং সামগ্রিক শিক্ষাব্যবস্থাকে জাতিগঠনের জন্য আরও উপযোগী করে গড়ে তুলতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দূরদর্শী সিদ্ধান্ত এবং পদক্ষেপ আশা করছি।


   আরও সংবাদ