ঢাকা, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৭, ৮ সফর ১৪৪২

সেদিন সড়ক পরিদর্শনে আসা মোকাব্বির খান


প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন


সেদিন সড়ক পরিদর্শনে আসা মোকাব্বির খান

খাদিজা জাহান তান্নি : করোনা কালীন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় আমার বাড়িতে প্রত্যাবর্তন। কয়েকদিন থেকেই খালের মুখ-তালতলা এক কিলোমিটার রাস্তা নিয়ে এলাকাবাসীর কাছে জনপ্রতিনিধি নিয়ে অনেক অভিযোগ শোনলাম।

তাদের অভিযোগ জনপ্রতিনিধিরা নাকি বরাবরই সড়ক সংস্কারের আশ্বাস দেন কিন্তু আশ্বাসের ফলাফল সফল হয় না। এমন কথাবার্তা শোনার পর চিন্তা জাগল, এটা কি জনগণের দূর্বলতার কারণ নাকি জনপ্রতিনিধিদের!

এসব চিন্তা থেকেই মূলত রিপোর্ট লেখা শুরু করি। বক্তব্য নেয়ার জন্যে সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খানকে ফোন দিই। তিনি তখন করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। এই অসুস্থ অবস্থায় আমার কথাগুলো মনযোগ সহকারে শুনলেন এবং প্রতিশ্রুতি দিলেন দুই-তিন দিনের ভিতরে সিলেট এসে প্রকৌশলী নিয়ে নিজেই সড়কটি পরিদর্শন করে যাবেন।

তিনদিন পর ফোন আসলো। এম.পি মহোদয় রাস্তা পরিদর্শনে আসছেন। সেদিন প্রচণ্ড বৃষ্টি হচ্ছিল তবুও নিশ্চিত হওয়ার জন্য স্যারকে ফোন দিই। উনার প্রতি উত্তর ছিল, ৪০ মিনিট লাগতে পারে। প্রতিশ্রুতি রক্ষার ব্যাপারে উনার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ দিগুণ বেড়ে গেল। সবাই একরাশ ভালবাসা নিয়ে অপেক্ষা করছেন এমপি মহোদয় আসছেন। অত:পর সেদিন তিনি এসে সবার ভালোবাসা জয় করে নিলেন।

সবাই যখন কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছিলেন প্রতি উত্তরে বলেছিলেন, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ আমার করা উচিত। আমি আপনাদের কাছে ঋণী। আপনাদের দোয়া সাথে ছিল বলেই দুইবার করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরও আমি আপনাদের সামনে আসতে পেরেছি। কেনই বা আপনারা আমাকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছেন! যে জনগণের ভোটে নির্বাচিত আমি, তাদের পাশে থেকে তাদের জন্যে কাজ করতে পারা আমার সৌভাগ্য।

হঠাৎ একজন বলে উঠলেন, "স্যার আমি তো আওয়ামী লীগের সমর্থক আপনি বিএনপির। আমি সমস্যার কথা বললে কি শুনতেন?" এমপি মহোদয় বিনয়ের সাথে উত্তর দিলেন কাজ করতে গিয়ে এ পর্যন্ত আমি কাউকে জিজ্ঞেস করিনি কোন দল সাপোর্ট করো? কাকে সমর্থন করো? যদি দল/স্বার্থের মোহে থাকি কিছু মানুষ আমার সেবা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়ে যাবে।

এম.পি মহোদয়ের কাছে অনেকেই বিভিন্ন সমস্যা এবং প্রয়োজনী বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি একজন দায়িত্বশীল জনপ্রতিনিধির মতোই সব শুনেছিলেন। সবশেষে তিনি উত্তর দিলেন, প্রথমে আমরা অধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো করি। আমরা যদি একসাথেই সব কাজ শুরু করি তবে গুরুত্বপূর্ণ কাজ বাদ পড়ে যেতে পারে।

আলোচনা শেষে সড়ক পরিদর্শন করলেন। সবার সাথে সাক্ষাৎ এবং খোঁজখবর নিলেন। এলাবাসীকে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দিলেন। সেদিন পুরোটা সময় এলাকার মানুষগুলোকে একদম আপন করে নিয়েছিলেন। আলোচনারত সময়ে কোনো সংকোচ কিংবা বিরক্তি প্রকাশ পায়নি। অসাধারণ ব্যক্তিত্বের একজন মানু্ষ। যুগে যুগে তারাই বেঁচে থাকুক হাজারো মানুষের মনে।


   আরও সংবাদ